গাড়ি পোড়ানোর মামলা, বিএনপির ৩০০ নেতাকর্মীর জামিন আবেদন

19

ডেক্স রিপোর্ট।।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় গাড়ি পোড়ানোর ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় বিএনপির প্রায় ৩০০ নেতাকর্মী হাইকোর্টে আগাম জামিন আবেদন করেছে। রোববার বিচারপতি হাবিবুল গনি ও বিচারপতি রিয়াজউদ্দিন খানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে বিষয়টি মেনশন করেছেন বিএনপির আইনজীবী এবং সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল। সোমবার ওই বেঞ্চে প্রায় শতাধিক নেতাকর্মীর জামিন আবেদনের শুনানি হওয়ার কথা। পর্যায়ক্রমে অন্যদের জামিন আবেদনেরও শুনানি হবে বলে হাইকোর্ট সূত্র জানিয়েছে। হাইকোর্ট সূত্র আরো জানায়, প্রায় ৩২টি আলাদা আবেদনে বিএনপির এসব নেতাকর্মীর জামিন আবেদন করা হয়। ফাইলিং ল’ইয়ার হিসেবে বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামালের জুনিয়র এড. মাকসুদ উল্লা ২৪টি, ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজলের জুনিয়র এড. নূরে আলম সিদ্দিকী ২টি এবং অন্যরা বাকী আবেদন করেছে বলে আদালত সূত্র জানিয়েছে।

এর আগে, গত ১৫ই নভেম্বর বাস পোড়ানোর ঘটনায় দায়ের করা মামলায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ঢাকা ১৮ আসনের প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামলসহ দলটির ১৫০ নেতাকর্মীর জামিন আবেদন করা হয়। এরপর গত ১৮ই নভেম্বর বিচারপতি হাবিবুল গনি ও বিচারপতি রিয়াজউদ্দিন খানের হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ ১২০ নেতাকর্মীর জামিন মঞ্জুর করেন। ওই দিন ব্যারিস্টার কায়সার কামাল সাংবাদিকদের বলেন, বিএনপির ৩৮ সিনিয়র নেতাসহ প্রায় পাঁচ শতাধিক কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছে বিএনপি নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ঢাকা ১৮ আসনের প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল। তিনি বলেন, এই মামলায় যাদের আসামি করা হয়েছে তাদের একজন ইশরাক হোসেন, যিনি আইসোলোশনে আছেন। অথচ তাকে গাড়ি পোড়ানোর মামলায় আসামি করা হয়েছে। অপর আরেকজন হলেন প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন। তিনি উত্তরায় নির্বাচনী কাজে ব্যস্ত সময় পার করেছেন। অথচ তাকে খিলক্ষেত থানায় প্রধান আসামি করা হয়েছে। খুব শিগগিরই এদের জামিন আবেদনের শুনানি হবে। হাইকোর্টের নির্দেশনা থাকায় পর্যায়ক্রমে অন্য আসামিদেরও জামিন আবেদন করা হবে।
গত ১২ নভেম্বর ঢাকা ১৮ আসনের উপনির্বাচনের দিন, রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় বেশ কয়েকটি গাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়। এর প্রেক্ষিতে রাজধানীর ৭টি থানায় ১৬টি মামলা হয়।

(সৌজন্যে : মানবজমিন অনলাইন ভার্সন)