তেলেগাতী সরকারি গাছ কর্তন, ওসি সাহেবের নলেজে আছে গাছ কাটার বিষয় : জাহিদ ইকবাল

110

আবু হামজা বাঁধন

খুলনার আড়ংঘাটা থানাধীন তেলিগাতী বাইপাশ সড়কের পাশে অবৈধভাবে সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ এসেছে ব্যাংকার শেখ জাহিদ ইকবালের বিরুদ্ধে। তবে আড়ংঘাটা থানার ওসির নলেজে দিয়ে গাছ কাটা হয়েছে বলে মন্তব্য করেন ওই ব্যাংক কর্মকর্তা।

স্থানীয়দের সূত্রে জানাযায়, তেলিগাতী এলাকায় সমাজ সেবক হিসেবে পরিচিত ব্যাংক কর্মকর্তা শেখ জাহিদ ইকবাল । তিনি শুক্রবার সকালে বাইপাশ সড়কের এক পাশে কয়েকটি মূল্যবান গাছ কেটে নিয়ে যায়। খানজাহান আলী থানা প্রেস ক্লাবের  সেক্রেটারী  শেখ আসলাম  হোসেন জানান, বিষয়টি স্থানীয় সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তাদের সাথে অশোভনীয় আচারন করেন জাহিদ ইকবাল।

সরকারি গাছ কাটার বিষয়টি বনবিভাগের কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম নিশ্চিত করে তিনি বলেন, আমরা গাছ গুলো উদ্ধার করেছি। কে কিভাবে কেটেছে বিষয়টি নিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিব।

এদিকে আড়ংঘাটা থানার ওসি  রেজাউল করিম ঘটনা স্থল পরিদর্শন করে জানান, জাহিদ ইকবাল গাছ কাটার বিষয়টি আমাকে জানায়নি, লিখিত অভিযোগ আসলে আমরা তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করব।

শেখ জাহিদ ইকবাল জানান, আমি গাছের কিছু অংশ কেটেছি, তবে আড়ংঘাটা থানার ওসির নলেজে দিয়ে। তিনি আরো বলেন, আমার নিজ অর্থায়নে পুলিশ বক্স করে দেব। ফলে গাছের অংশগুলো কাটা জরুরী ছিল।

ঘটনা এখানে শেষ নয়, বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তি সাংবাদিকদের সাথে লেনদরবার করার চেষ্টা করে ব্যার্থ হন। এছাড়া আড়ংঘাটা থানার ওসি রেজাউল করিম বিষয়টি নিয়ে কিছুটা শিথিলতা প্রদর্শন করেন বলে স্থানীয় সাংবাদিক সূত্রে জানা যায়। উল্লেখ্য, অবৈধভাবে সরকারি গাছ কাটার বিষয়টি নিয়ে খুলনার ফুলবাড়িগেটস্থ তেলিগাতি অঞ্চলে নিন্দার ঝড় উঠেছে। তবে কেউ কেউ অভিযুক্ত জাহিদ ইকালের ছাফাই গায়ছেন। শেখ জাহিদ ইকবাল জনতা ব্যাংকের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা বলে পরিচয় দেন। এছাড়া তিনি কোনভাবেই দোষি নয় বলে এ প্রতিবেদককে জানান। আগামীকালের প্রতিবেদনে বিস্তারিত আসছে।

স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে ওসি রেজাউল করিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন
স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে ওসি রেজাউল করিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন