উত্তেজনা যুক্তরাষ্ট্রে , বাইডেন জয়ের দিকে, ট্রাম্পের ফলাফল প্রত্যাখান

26

জয়ের দ্বারপ্রান্তে জো বাইডেন। ক্রমশ ম্লান হয়ে আসছে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের জয়ের সম্ভাবনা। তিনি ভোটে জালিয়াতির অভিযোগ করেছেন। ভোট বন্ধের দাবিতে মামলা করেছেন। দাবি করেছেন ভোট নতুন করে গোনার। অ্যারিজোনার ফিনিক্সে একটি নির্বাচনী অফিসের বাইরে রাইফেল, হ্যান্ডগানসহ বিক্ষোভ করেছে তার প্রায় দুই শত সমর্থক। ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে বিভিন্ন শহরে। পুলিশ নিউ ইয়র্ক সিটি, পোর্টল্যান্ড, অরিগনে এমন বিক্ষোভ থেকে বেশ কিছু বিক্ষোভকারীকে গ্রেপ্তার করেছে।

বুধবার থেকে শনিবারের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে ট্রাম্পবিরোধী শতাধিক ইভেন্ট পরিকল্পনা করা হয়েছে। সব কিছু মিলে এবার যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তীব্র এক উত্তেজনা বিরাজ করছে। আগেভাগেই সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ার পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে। ব্যবসায়ী নেতারা সতর্ক করেছেন সবাইকে।

দোকানপাটে বাড়তি নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে মোতায়েন করা হয়েছে নিরাপত্তারক্ষী। এ খবর দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এবার ব্যতিক্রমী সব ঘটনা ঘটে যাচ্ছে। আগে থেকেই নির্বাচন নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার হুমকি দেয়া প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সত্যি আদালতের আশ্রয় নিয়েছেন কয়েকটি রাজ্যের বিষয়ে।

এরই মধ্যে নির্বাচনের পরে দু’দিন পেরিয়ে গেছে। কিন্তু পূর্ণাঙ্গ ফল প্রকাশ হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রে এমন ঘটনা বিরল। ফল    ঘোষণায় বিলম্বের কারণ হলো মেইলে পাওয়া ভোট। এগুলো গণনায় বাড়তি সময় লাগছে। এ জন্য ভোট গণনা বা ফল ঘোষণায় বিলম্ব হলেও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প একে দেখছেন ‘জালিয়াতি’ হিসেবে। অনলাইন ফক্স নিউজের হিসাবে ২৬৪টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়ে হোয়াইট হাউজের খুব কাছে চলে গেছেন। প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে তার আর প্রয়োজন মাত্র ৬টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট। যে রাজ্যগুলোতে ভোটের ফল এখন আটকে আছে, সেখানে মেইলে যারা ভোট দিয়েছেন, তার মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠই ডেমোক্রেট। ফলে এর মধ্যে যেকোনো একটি রাজ্যে বাইডেন বিজয়ী হলেই তার হোয়াইট হাউজের টিকেট নিশ্চিত হয়ে যাবে। অন্যদিকে ট্রাম্প ২১৪ ইলেকটোরাল কলেজ ভোট নিয়ে তাকে পিছু ধাওয়া করছেন। তবে রয়টার্সের হিসাবে নেভাদা ও অ্যারিজোনায় সামান্য ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে আছেন ৭৭ বছর বয়সী জো বাইডেন। অন্যদিকে পেনসিলভ্যানিয়া ও জর্জিয়াতে খুবই সামান্য ভোটের ব্যবধানে ট্রাম্প এগিয়ে। নর্থ ক্যারোলাইনায়ও সামান্য ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে আছেন ট্রাম্প। এসব রাজ্যের মধ্যে একটিও যদি ট্রাম্পের হাতছাড়া হয় তাহলেই জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট। এসব রাজ্য গত নির্বাচনে জয় পেয়েছিলেন ট্রাম্প। যদি তিনি এবার সেই ধারা অব্যাহত রাখতে ব্যর্থ হন তাহলে ১৯৯২ সালের রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট জর্জ এইচ ডব্লিউ বুশের পর তিনিই হবেন প্রথম ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট, যিনি ক্ষমতায় থাকতে পরাজিত হয়েছেন। ওদিকে বুধবার বিজয়ের পূর্বাভাস দিয়েছেন বাইডেন। তিনি এদিন ডেমোক্রেট নিয়ন্ত্রিত হোয়াইট হাউজ মিশন পরিচালনা করার জন্য ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য একটি ওয়েবসাইট চালু করেছেন।