অভয়নগরে ধর্ষণ মামলার আলামত মেলেনি, নাটকিয়তা ফাঁস,ইন্দোন দাতাদের নামে পিটিশন মামলা

24

মেহেদী হাসান ইরান।। স্টাফ রিপোর্টার।।
বাশুয়াড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ২০২০ সালের জে এস সি পরীক্ষার্থী তার নিজের বোন খাদিজা ও এলাকার যুবোলীগের নেতা মাহমুদ হাসান লিটোন সহ গুটিকয়েক পাতি মাতবরের চাপে পড়ে চাচাত ভায়ের নামে তথ্যগোপন করে ১৮/০৮/২০২০ তারিখে অভয়নগর থানায় ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের (সংসধনী২০০৩) এর ৯/১ ধারায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। যার নং ১৫ তাং ১৮/০৫/২০২০।

শুরু থেকে বহুল নাটকিয়তার মধ্যদিয়ে আজ ২৫ দিন অবদি আসামী শামিম হাসান (২১) যশোর কারাগারে বন্দি রয়েছে। এদিকে ভিকটিমের মেড়িকেল রিপোর্টে ইতি মধ্য কেচ তদারাকি এস আই জাকির হোসেনের নিকট এসে পৌছিয়েছে। ধর্ষণের কোন আলামত না থাকায় মহাবিপাকে এখন বাদী নিজে ও তাকে দিয়ে যারা মিথ্যামামলা দায়ের করতে বাধ্য করেছিল তারা । এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে অভয়নগর উপজেলার ৭নং শুভরাড়া ইউনিয়নের বাশুয়াড়ী গ্রামে। ভিকটিমের পিতা রাশেদ গাজী একজন সহজ সরল লোক হওয়াতে স্থানীয় কিছু কু-পরামর্শ দাতারা ভিকটিমকে দিয়ে এই মিথ্যা মামলা করিয়েছে বলে সূত্র নিশ্চিত করেছ। মামলার আরজি থেকে জানাযায় আসামী ভিকটিমকে মোবাইলে গান দেওয়ার কথাবলে ঘরের মধ্যনিয়ে ধর্ষণ করেছে। অনুসন্ধানে জানাগে ভিকটিম নড়াইলের মির্জাপুরের আড়পাড়া গ্রামের মো: জিয়ারুল বিশ^াসের ছেলে মো; মনিরুল বিশ^াসের সাথে চলতি বছরের প্রথম দিকে নাবালক এই ভিকটিমের সাথে ১,০০,০০০/= টাকা দেলমহর ধার্যে বিবাহ হয়। বিবাহের এক পর্যায়ে মেয়ের সভাব চরিত্র ভালো না হওয়াতে গত ১৫/০৭/২০২০ তারিখে আপোষে তালাক হয়ে যায়। ভিকটিম মামলায় তথ্য গোপন করে মেডিকেল রিপোটের ১৪ নং কালামের খ অপশনে সে একজন ”বিছেদরতা” হিসাবে উল্লেক করেছেন। মেডিকেল রিপোটের ৭ নং কালামে অফিসার উল্লেখ করেছেন ’ : নো সাইন অব ইনজুরি মেক ইন বডি এন্ড প্রাইভেট পার্ট” ১৫ নং কালামের সকল রিপোট নরমাল হিসাবে উল্লেক করা হয়েছে। যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের ড: হালিমা তুজ জোহরার ৫৩৪৭ নং স্বারকের ১৯/০৮/২০২০ তারিখের অভয়নগর থানার ১৫ নং মামলার ধারা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন অইনের ২০০০ সংশধোনী ২০০৩ এর ৯/১ রিপোট দিতে গিয়ে ২৫/৮/২০২০ তারিখের দেওয়া মেডিকেল রিপোটের ২০ নং কালামের মতামত লিখতে গিয়ে উল্লেখ করেছেন ”” এজ অব দি ভিকটিম ইজ অ্যাবাউট ১৫-১৬ (ফিপটিন- স্র্যিকটিন) ইয়ার । এট দি টাইম অব ভিকটিম একজামিনেশন দিয়ার ওয়াজ নো সাইন অব ফোরসফুল সেক্র্য একটিভিটিস।”””” অথচ ভিকটিম তার মেডিকেল রিপোটের ৩ নং কালামে সন্মতি ঞ্জপনে বলেছেন ””আমি কর্তব্য রত ড: কতৃক পরি¯িথতি সম্পর্কে সমক অবগত হয়ে এই পরীক্ষার ফলাফল আমার বিপক্ষে যেতে পারে জেনেও আমি আমার সমস্ত শরীরে ডা: দ্বারা পরীক্ষাকরাতে রাজী আছি। ভুক্তভুগি পরিবার থেকে দাবিকরেছেন তাদের ছেলে এ রকম হীন কাজ করতে পারেনা স্থানীয় ৭ নং শুভরাড়া ইউনিয়নের যুবলীগে সাধারণ সম্পাদ মাহমুদ হাসান লিটনের নেতৃত্বে এই মামলা হয়েছে। তাই মিথ্যা কেচের হাতথেকে কাচতে যুবলীগের নেতা সহ তিনজনের নামে যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যজি: নির্বাহী আদালতে একটি পিটিশন মামলা করেছি যার নং পি-৪০২/২০ তারিখ ০১/০৯/২০২০