গোপালগঞ্জের মানব পাচারকারী শাওন সিআইডির হাতে গ্রেফতার

266

নাদিম সিকদার / গোপালগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

গোপালগঞ্জ জেলার কোটালিপাড়ার হিরণ গ্রামের শাওন খান নামে এক প্রতারকে গ্রেফতার করেছে মাদারীপুরের সিআইডি পুলিশ।  ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গোপালগঞ্জ জেলার কোটালিপাড়া উপজেলার হিরণ গ্রামের উত্তর পাড়ার মোদাচ্চের খান(সাবেক মেম্বর)এর ছেলে শাওন খানের যোগসাজসে ইটালিতে নিয়ে যাওয়া এবং ভালো চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে মাদারীপুর সদর উপজেলার কুনিয়া গ্রামের মনির আকন (৪০) নামে এক ব্যক্তির কাছ থেকে ৮,৫০,০০০/=টাকা আর্তসাত করে অতঃপর লিবিয়া নিয়ে দালালদের হাটে তুলে দেয়। লিবিয়ার বেনগাজিতে দালালরা আরও তিন লাখ টাকা দাবি করে। মনির আকনের স্বজনরা তিন লাখ টাকা দিতে না পাড়ায় তাকে লিবিয়ার বেনগাজীতে ২৬ জন বাংলাদেশী কে হত্যার সঙ্গে সেখানে তাকেও খুন করা হয়। এব্যাপারে মৃত মনির আকন এর স্ত্রী মোছাঃ মেরিনা বেগম বাদি হয়ে ০৮/০৬/২০২০ইং তারিখে মাদারীপুর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ০৯/২০২০ ধারা, ৮/৮/১০(১) মানব পাচার প্রতিরোধ  ও দমন আইনে শাওন খান সহ ৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন।

মামলার বিবরনে জানা যায়, গত ০৮/০৬/২০২০ইং তারিখে মাদারীপুর মডেল থানার মামলা নং ০৯/২০২০ এর রেফারেন্সে ধারা, ৮/৮/১০(১) মানব পাচার প্রতিরোধ  ও দমন আইন ২০১২ তৎসহ ৩০২/৩৪ পেনাল কোড এ তাকে গত ২৭/০৮/২০২০ইইং তারিখে ডিএমপি, ঢাকা ডিবি পুলিশ ঢাকা মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে মাদারীপুর সিআইডি সাব ইন্সপেক্টর জনাব মোহাম্মদ হাফিজ আল- আসাদ এর নিকট হস্তান্তর করেন। মাদারীপুর দায়রা জজ আদালতে আসামী শাওন খান ফৌজঃ কাঃ বিঃ ১৬৪ ধারা মোতাবেক জবানবন্ধিতে তার দোষ স্বীকার করে অতঃপর মাদারীপুর আদালত শাওন খান কে ২৮/০৮/২০২০ ইং তারিখে কারাগারে প্রেরণ করে।
ভুক্তভুগীরা জানান, আসামী শাওন খান দীর্ঘদিন ধরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এবং প্রধানমন্ত্রীর পিএস-২ জনাব গাজী হাফিজুর রহমান লিকু সাহেবের নাম ভাঙ্গিয়ে মানুষকে বিদেশে পাঠানো এবং চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে সাধারন মানুষের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।