অভয়নগরের বিভিন্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান

19

সবুজ গাজী

মঙ্গলবার দুপুর থেকে বিকাল পর্যন্ত চলা এ অভিযানে তিনটি কিনিকের প্যাথলজিসহ ছয়টি ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ ঘোষণা করা হয়। নতুন লাইসেন্স ও নবায়ন করার জন্য আগামী ২৩ আগস্ট পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়া হয়।

এ সময় বিভিন্ন ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নানা অব্যবস্থাপনা দেখে অসন্তোষ প্রকাশ করেন সিভিল সার্জন। অভিযানের ব্যাপারে অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাহামুদুর রহমান রিজভী জানান, উপজেলার নওয়াপাড়া শহরে অবস্থিত ছয়টি বেসরকারি ক্লিনিক ও ছয়টি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে স্বাস্থ্য বিভাগ অভিযান চালানো হয়।

এরমধ্যে সার্জিক্যাল ক্লিনিক, ফাতেমা কিনিক, আল-মদিনা ক্লিনিক ও আরোগ্য সদন প্রাইভেট হাসপাতালের প্যাথলজি বন্ধ ঘোষণা করা হয়।ছয়টি ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মধ্যে ফয়সাল ডায়াগনস্টিক ও ল্যাবওয়ে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সকল কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়।এছাড়া পালস্ ডায়াগনস্টিক, লাইফ কেয়ার, পপুলার ও নওয়াপাড়া ডায়াগনস্টিকের লাইসেন্স ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদী না থাকায় পরীক্ষা-নিরিক্ষার কাজ বন্ধ রাখতে বলা হয়। অভিযান টিমের প্রধান যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানান, নওয়াপাড়ায় বেসরকারি ক্লিনিকগুলো মেয়াদোত্তীর্ণ লাইসেন্স ব্যবহার করে কিনিক্যাল কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

অভিযান চলাকালে উপস্থিত ছিলেন, যশোর মেডিকেল কলেজ  সহকারী অধ্যাপক ডা. শেখ মোহাম্মদ আলী, অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. আহম্মেদ ফয়সাল পাভেল, প্রশাসনিক কর্মকর্তা আরিফুজ্জামান, অভয়নগর থানার এসআই নাসির উদ্দিন সহ পুলিশ সদস্য।