মশিয়ালী ট্রিপল মার্ডারের প্রধান আসামী জাফরিন পুলিশকে বিভ্রান্তমূলক তথ্য দিচ্ছে. ডিবিতে মামলা

992

আল আমিন খাঁন-খুলনা ‍ব্যুরো।

খুলনার খানজাহান আলী থানার মশিয়ালীতে চাঞ্চল্যকর ট্রিপল হত্যাকাণ্ডের মামলার তদন্তভার মহানগর ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়েছে।

রবিবার দুপুরে খানজাহান আলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মো. কবির হোসেন জানান খুলনার  ১০ দিন পরও খুলনার মশিয়ালীতে মূল অভিযুক্ত জাকারিয়া হোসেন ও তার ভাই মিল্টনকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এছাড়া হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় একাধিক আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার হলেও তা উদ্ধার হয়নি। ফলে তদন্তে গতি বাড়াতে মামলাটি ডিবিতে হস্তান্তর করা হলো। মামলার নতুন তদন্তভার দেওয়া হয়েছে ডিবি ইন্সপেক্টর এনামুল হককে। এরই মধ্যে মামলার নথি ও গ্রেফতার হওয়া আসামিদের ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়েছে। ডিবি ইন্সপেক্টর এনামুল হক জানান, গ্রেফতার হওয়া আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। রিমান্ডের মেয়াদ শেষ হলে প্রয়োজনে নতুন করে রিমান্তে নেওয়া হবে। জানা যায়, ১৬ জুলাই রাতে জাকারিয়া-মিল্টন-জাফরিনদের গুলিতে খানজাহান আলী থানার মশিয়ালী এলাকায় একইসঙ্গে তিনজন নিহত হলে বিক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে গ্রামবাসী। পরে উত্তেজিত জনতা তাদের বসতবাড়ি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগুন ও জাকারিয়ার চাচাত ভাই জিহাদ শেখকে পিটিয়ে হত্যা করে। এদিকে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া মামলার অন্যতম আসামি জাফরিন হাসান পুলিশকে বিভ্রান্তকর তথ্য দিচ্ছে। তার দেওয়া তথ্যে কয়েকটি স্থানে অভিযান চালিয়েও অস্ত্র উদ্ধার করা যায়নি। অপরদিকে আসামিদের গ্রেফতার ও অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে এলাকায় মিছিল, সমাবেশ করছে হতাহতের পরিবার ও ক্ষুব্ধ গ্রামবাসী। খানজাহান আলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) মো. কবির হোসেন জানান, মামলাটির তদন্তভার শনিবার রাতে ডিবিকে দেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে রিমান্ডে থাকা আসামিদের ডিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।