ঝিনাইদাহে দিন যতই যাচ্ছে বাড়ছে  করোনায় আক্রান্ত রুগির সংখ্যা

12
মোঃ আল আমিন খান, ব্যুরো চীফ খুলনা
বৃহস্পতিবার ঝিনাইদাহে জেলায় নতুন করে ৬৪ জন আক্রান্ত হয়েছে ও এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের। ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গেল রাতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সাহিদা রহমান (৭০) ও উপসর্গ নিয়ে নারায়ন চন্দ্র মল্লিক (৬৫) এর মৃত্যু হয়েছে। সাহিদা রহমান জেলা শহরের আরাপপুর এলাকার রাশিদুর রহমানের স্ত্রী ও নারায়ন চন্দ্র মল্লিক কালীগঞ্জ উপজেলার আড়পাড়া গ্রামের বিবেশ্বর মল্লিকের ছেলে। মরদেহ দুটি পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাঃ লিমন হোসেন জানান, বুধবার সকালে করেনা পজিটিভ নিয়ে ঝিনাইদহ শহরের আরাপপুর এলাকা থেকে সাহিদা রহমান সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি হন। প্রচন্ড শ্বাসকষ্ট ও জ্বর নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ৯টার দিকে তার মৃত্যু হয়। গত তিনদিন আগে কালীগঞ্জের ফয়লা এলাকা থেকে নারায়ন চন্দ্র মল্লিক জ্বর ও শ্বাস কষ্ট নিয়ে সদর হাসপাতালে ভর্তি হন। তার করোনার উপসর্গ থাকার কারনে আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ৮টার দিকে মৃত্যু হয়। পরে চিকিৎসকরা তার নমুনা সংগ্রহ করে ল্যাবে পাঠিয়েছে। দুজনকেই স্বাস্থ্য বিধি ও সামাজিক দুরত্ব মেনেই আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে মরদেহ দাফন ও সৎকার সম্পন্ন করা হবে বলে স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।
ঝিনাইদহের সিভিল সার্জন ডাঃ সেলিনা বেগম জানান, কুষ্টিয়া ল্যাব থেকে ১৫৩টি নমুনা পাঠানো হয়েছিল। তার মধ্যে জেলায় আজ নতুন করে ৬৪ জন করেনা আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে সদর উপজেলায় ৪৯ জন রয়েছে। তার মধ্যে ২জন স্বাস্থ্যকর্মী, ৮জন পুলিশ ও র‌্যাব সদস্য রয়েছে। এ ছাড়াও শৈলকুপায় ৪জন, হরিণাকুন্ডুতে ১জন, কালীগঞ্জে ৮ জন ও কোটচাদপুরে ২জন রয়েছে।
আক্রান্তদের আইসোলেশন ওয়ার্ড ও বাড়িতে চিকিৎসকদের তত্বাবধানে রয়েছেন। জেলায় এপর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছে ৭৪৬ জন ও মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের।