খুলনা বিভাগে ১১২ জনের করোনা

41
ব্যুরো চিফ, খুলনা  
মঙ্গলবার সকালে খুলনা সা‌র্কিট হাউজে দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব মোঃ কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমন্বয় খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ‌্য প‌রিচালক ডা. রাশিদা সুলতানা বলেন, যশোর ল্যাবে যেটা পজেটিভ হচ্ছে, খুলনা ল্যাবে সেটা নেগেটিভ আসছে। আমরা আইইডি‌সিআরে চূড়ান্ত টেস্টের জন‌্য পাঠা‌চ্ছি। খুলনা মে‌ডিকেল‌ে এখন ২৩৫জন সাধারণ রোগী এবং আইসোলেশনে দু’জন আছেন। ১২ জন ডাক্তার কোয়ারেন্টাইনে আছেন এবং খুলনায় প্রথম করোনা প‌জি‌টিভ হওয়া তাবলিগ জামাতের সাথী, মৃত প্রকৌশলীর দুই ছেলে ও পুলিশ সদস্য সুস্থতার দিকে। খুমেক ল্যাবে ১দিনে ১৯২টি টেস্ট করা যায়; তবে দক্ষ ল‌্যাব টেকনিশিয়ান সংকট রয়েছে। টানা কাজ করায় দুইজন ল‌্যাব টেকনিশিয়ান অসুস্থ, তবে করোনা নয়।১১২ জনের করোনা
ভাইরাস পজেটিভ। এর মধ্যে ৪১ জন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকমী আছে। এ তথ‌্য নিশ্চিত করেছেন স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচালক ডা. রাশিদা সুলতানা। সি‌ভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ জানান, খুলনায় আক্রান্ত সবাই দেশের বি‌ভিন্ন প্রান্ত থেকে এসেছে। স্থানীয়ভাবে কেউ আক্রান্ত হয়‌নি। তবে সামনে পরিস্থিতি আরো খারাপ হতে পারে। এ ছাড়া খুমেকের উপাধ‌্যক্ষ ডা.মেহেদী নেওয়াজ বলেন, চি‌কিৎসকদের অরিজিনাল এন-৯৫ মাস্ক দিতে হবে। খুমেকে রি-এজেন্ট ও পোটেবল এক্সরে মেশিন দরকার। বায়ো হ্যাজাড ব্যাগও লাগবে। বি‌ভিন্ন ক্ষেত্রে সমন্বয়হীনতায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন তি‌নি। খুলনা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব মো. কামাল হোসেন তার বক্তব্যে বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবেলায় চিকিৎসা সেবায় জড়িত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সবার আগে সুরক্ষিত রাখতে হবে। চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিতরা যেন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত না হন সেদিকে আগে নজর দিতে হবে। সভায় আরো জানানো হয়, খুলনা জেলায় এ পর্যন্ত ৯ জন কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে একজন মারা গেছেন এবং আট জনের অবস্থা সন্তোষজনক। খুলনায় ডায়বেটিক হাসপাতালটিকে কোভিড-১৯ চিকিৎসায় প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এখানে ১০টি বেড আইসিইউসহ ভেন্টিলেটার সুবিধা রয়েছে। চিকিৎসকদের জন্য যথেষ্ট পরিমান ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী মজুত আছে। সভায় উপস্থিত ছিলেন খুলনা সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, বিভাগীয় কমিশনার ড. মু: আনোয়ার হোসেন হাওলাদার, পুলিশ কমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবির, খুলনা স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচালক ডা. রাশেদা সুলতানা, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন, পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ, সেনাবাহিনীর প্রতিনিধি লে. কর্নেল মির্জাসহ কমিটির সদস্যরা সহ আরো অনেকেই।