খুলনা বয়রায় সন্ধ্যার পরে চায়ের দোকানে ভীর, নিয়ন্ত্রনে ব্যার্থ

27
আল আমিন খাঁন।।
সারাদেশ ব্যাপি যেখানে করোনা ভাইরাস নামক ব্যাধিতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে সেখানে প্রশাসনের হাজারো চেষ্টা করে কোন ভাবেই পারছে না জনগনের সংগম এড়াতে। সেনাবাহিনী মোতায়ন করা হলেও এক শ্রেনীর লোক কোন কিছুর তোয়াক্কা নিয়ম নীতি না মেনেই প্রতিনিয়ত আড্ডা দিচ্ছে চার দোকানে, সন্ধ্যা হলেই বয়রার কিছু জাগাতে লোকজন এর ভীর জমতে দেখা যায়
প্রতিটনিয়ত উল্লেখযোগ্য স্থান গুলো হলো, বয়রা আজীজের মোড়,মোস্তোর মোড়, রায়ের মহল, সহ বিভিন্ন অলি গলিতে সন্ধ্যার পর চার দোকানে চলছে জনগনের আড্ডা সেখানে অধিকাংশ মানুষই নেয় মুখে মাস্ক নেই হাতে হ্যান্ড গ্লোবস, নেই কোন নিয়ম নীতি। ডিসি অফিস থেকে তথ্য অনুুসারে জানানো হয় বিকাল ৫ টার পর সকল চার দোকান বন্ধ থাকবে দুইজন এর বেশি লোক একই সাথে যাতে না থাকতে পারে সেক্ষেত্রে নামানো হলো সেনাবাহিনী, হয়তো মেন সড়কে লোক থাকে না, কিন্ত বিকাল থেকে শুরু করে অনেক রাত পযন্ত বয়রার বিভিন্ন অলি গলিতে চলছে আগের মতন আড্ডা সরকারের কোন নিয়ম নীতি না মেনেই চলছে অনেকই।দোকানদার এভাবে চলতে থাকলে করোনা নামক ভাইরাস কতটুকু প্রতিরোধ হবে বলে মনে করছে সমাজের এক শ্রেনীর সচেতন মহল। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি জানান প্রশাসন যদি কঠোর ভাবে বয়রার প্রতিটি অলি গলিতে ঘুরতো তাহলে হয়তো এতো লোকের সমাগম হতো না। এভাবে চলতে থাকলে কোন ভাবেই এই ভাইরাস প্রতিরোধ করা সক্ষম হবে না বলে মনে করছে এই এলাকার কিছু সচেতন ব্যক্তি। প্রশাসন যদি সঠিক দৃষ্টি রাখে তাহলে হয়তো এই জন সংগম বন্ধ করা সম্ভব বলে মনে করে অনেকেই। এই বিষয়টার উপর কতৃপক্ষের যথাযথ দৃষ্টি আকর্ষন করছে জনগন যাতে করে বিকালের পর থেকে সকল চার দোকান বন্ধ হওয়া সহ দুইজনের অধিক জনগন যাতে একই জায়গাতে অবস্থান না করতে পারে সেই জন্য দরকার প্রশাসনের কঠোর পদক্ষেপ।