সাংবাদিক আরিফকে আটক ও সাজার আইনি ব্যাখ্যা দিতে পারেননি ডিসি সুলতানা

35

সাংবাদিক আরিফকে আটক ও সাজার আইনি ব্যাখ্যা দিতে পারেননি ডিসি সুলতানা । মধ্যরাতে কুড়িগ্রাম বাংলা ট্রিবিউনের জেলা প্রতিনিধি আরিফুল ইসলাম রিগানকে বাড়ি থেকে তুলে এনে ভ্রাম্যমাণ আদালতে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। গত শুক্রবার রাত ১২টার দিকে তার কুড়িগ্রাম শহরের চড়ুয়াপাড়াস্থ বাড়ি থেকে আটকের পর সাজা দিয়ে জেল হাজতে পাঠানো হয়। তবে প্রশাসন থেকে বলা হয়েছে টাস্কফোর্সের মাদক বিরোধী অভিযানে গভীর রাতে তাকে আটক করা হয়। এ সময় তার বাড়ি থেকে ৪৫০ এমএল দেশিমদ ও ১০০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করা হয় বলে জানান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। অভিযান পরিচালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রিন্টু বিকাশ চাকমা জানান, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ, আনসার ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সমন্বয়ে টাস্কফোর্সের অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানের সময় মাদকসহ আরিফুল ইসলাম রিগানকে আটক করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালতের সামনে তিনি দোষ স্বীকার করায় এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। আরিফুল ইসলামের স্ত্রী মোস্তারিমা সরদার নিতু জানান, গত শুক্রবার গভীর রাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি দল বাসায় প্রবেশ করে আরিফুল ইসলামকে জোরপূর্বক ধরে নিয়ে যায়।

কী অভিযোগে তাকে আটক করা হয়েছে তখন তারা জানাননি। তারা রিগানকে মারতে মারতে নিয়ে যায়। পরে জানতে পারি মাদক রাখার অপরাধে তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। আমার স্বামী পান, সিগারেট খায় না। মাদক তো দূরের কথা। তাকে ফাঁসানো হয়েছে।