ফুলতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্টাফ রফিককে মারধর

261

ডেক্স রিপোর্ট :

খুলনার ফুলতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার উত্তম কুমার  দেওয়ানের উপর হামলার রেষ কাটতে না কাটতে আবারও আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে হাসপাতালের টিকিট কাউন্টারে কর্মরত রফিকুল ইসলাম রফিক (৪০) কে মারধর করে কয়েকজন বহিরাগত।

জানাযায়, টিকিট কাউন্টারে টিকিট আগে কাটা নিয়ে হাসপাতালের চতুর্থ শ্রেনীর কর্মচারি রফিকুল ইসলামের সাথে বাকবিতন্ড হয় দামোদর গ্রামের সবুজ নামে এক যুবকের সাথে। একপর্যায় সবুজ এলোপাতাড়িভাবে রফিককে মারধর শুরু করে। হাসপাতালের অন্যান্য স্টাফ ও আগত রোগিরা রফিককে সবুজের হাত থেকে নিরাপদে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় হাসপাতালে আগত  রোগি ও হাসপাতালের ডাক্তার, নার্স, স্টাফদের মাঝে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যায়। এ ঘটনার একদিন আগে অর্থাৎ গতকাল সোমবার সকালে মহাসিন গাজী নামে এক সহকারি চিকিৎসক শিশু কনসালটেন্ট উত্তম কুমার  দেওয়ানকে ছুরিকাঘাত করে হাসপাতালে তাঁর নিজ নিজ চেম্বারে। এর আগে অর্থাৎ ১ ফেব্রুয়ারী শনিবার আরএমও মিজানুর রহমানের বদলি নিয়ে হাসপাতাল অভ্যান্তরে মানবন্ধন শুরু হয়। পরপর কয়েকটি ঘটনায় পুরো হাসপাতালটিতে নিয়ম শৃংখলা অনেকটা বিঘ্নিত হচ্ছে। পাশাপাশি হাসপাতালে ডাক্তার নার্স সহ সর্বসাধারন পরপর দুটি হামলার ঘটনায় আতংকিত রয়েছে। এছাড়া অন্যান্য দিনের তুলনায় আজ মঙ্গলবার হাসপাতালে আগত রোগি সংখ্যা খুবই কম। সবকিছু মিলেয়ে ফুলতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে একধরনের চাপা আতংক বিরাজ করছে।

এরই মধ্যে আজ দুপুরে খুলনা থেকে সিভিল সার্জন ডাঃ সুজাত আহমেদ তদন্তের জন্য হাসপাতালে পরিদর্শনে আসেন। এ সময় গণমাধ্যমকর্মীদের জানান, হাসপাতালের পরিবেশ সুন্দর করতে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। এছাড়া ডাঃ উত্তম কুমার দেওয়ানের উপর যে হামলা হয়েছে তা ন্যাক্কারজনক।

ফুলতলা উপজেলা স্বাস্থ্য প.প কর্মকর্তা শেখ কামাল হোসেন জানান, হাসপাতালে ‍সুষ্ঠ পরিবেশ বজায় রাখার স্বার্থে একটি আভ্যন্তরীণ কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়েছে। আর উত্তম কুমার দেওয়ানের বিষয় মামলা দায়ের হয়েছে।