স্বাগতিক পাকিস্তানের কাছে ৫ উইকেটে হেরেছে বাংলাদেশ

99

দীর্ঘ এক যুগ পর পাকিস্তান সফরে টাইগাররা। তিন দফার সফরের প্রথম দফায় রয়েছে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। শুরুটা হলো হার দিয়ে। স্বাগতিক পাকিস্তানের কাছে ৫ উইকেটে হেরেছে বাংলাদেশ। অথচ পাকিস্তানের এই দলটায় নেই নিয়মিত খেলোয়াড় ইমাম উল হিক, ফখর জামান, মোহাম্মদ আমীর কিংবা ওহাব রিয়াজরা। যদিও এই সফরে নেই টাইগারদের সেরা ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। ব্যক্তিগত কারণে নাম সরিয়ে নেন এই সফর থেকে। নিয়মিত অধিনায়ক সাকিব আল হাসান তো আছেন এক বছরের নিষেধাজ্ঞায়। বেশিরভাগ তরুণ খেলোয়াড় নিয়ে গড়া বাংলাদেশ দলে অভিজ্ঞ আছেন তামিম ইকবাল, মাহমুদউল্লাহ (অধিনায়ক), লিটন দাস, সৌম্য সরকার। দলে থাকা সবাই বিপিএলে দুর্দান্ত পারফর্ম করেই জায়গা করে নিয়েছেন এই সফরে। লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে দুপুরে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। ব্যাট করতে নেমে দুই ওপেনার তামিম ইকবাল আর নাঈম শেখ রান তুলেছেন ধীরগতিতে। দুজন মিলে ১১ ওভারে করেছিলেন ৭১ রান। তামিমের ৩৪ বলে ৩৯ রান করে বিদায়ের মাধ্যমে ভাঙে ওপেনিং জুটি। লিটন দাস রানআউট হয়ে ফেরেন ১২ রানে। এরপর নাঈম শেখ ক্যাচ দেন শাদাব খানের বলে ৪৩ (৪১) রান করে। শেষদিকে মাহমুদউল্লাহর ১৯ রানে ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৪১ রান তুলে বাংলাদেশ। পাকিস্তানের পক্ষে ১টি করে উইকেট নেন শাহীন আফ্রিদি, হারিস রৌফ ও শাদাব খান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে শফিউল ইসলামের প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই সাজঘরে ফেরেন বাবর আজম। এরপর মোস্তাফিজুর রহমানের বলে ১৭ রান করে ক্যাচ দেন মোহাম্মদ হাফিজ। ওপেনার আহসান আলী আর শোয়েব মালিক মিলে জুটি গড়েন ৪৬ রানের। আহসান ৩৬ করে ফিরলেও শোয়েব মালিকের ব্যাটে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় পাকিস্তান। মাঝে ইফতিখার আহমেদকে ১৬ রানে শফিউল আর ইমাদ ওয়াসিমকে ৬ রানে ফেরান আল-আমীন। মালিক অপরাজিত থেকে যান ৫৮(৪৫) রানে। বাংলাদেশের পক্ষে ২ উইকেট নেন শফিউল, ১টি করে উইকেট নেন মোস্তাফিজ, আল-আমীন ও আমিনুল ইসলাম। তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ একই ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হবে আগামীকাল ২৫ জানুয়ারি দুপুর ৩টায়।