যশোরে সড়ক দুর্ঘটনায় বিয়ের কনেসহ তিন নারীর মৃত্যুর পুরো শহরে শোকের ছায়া

145
খুলনা ব্যুরো 
যশোরে সড়ক দুর্ঘটনায় বিয়ের কনেসহ তিন নারীর মৃত্যুর ঘটনায় পুরো শহরে শোকের ছায়া। কীভাবে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটলো তা জানার আগ্রহ সবার মধ্যে। ঘটনার পরপরই গাড়ির চালক ও নিহত তনিমা ইয়াসমিন পিয়াসার স্বামী শফিকুল ইসলাম জ্যোতিকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। তিনি মদ্যপ অবস্থায় বেপরোয়া গাড়ি চালানোর কারণেই মূলত দুর্ঘটনাটি ঘটে বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে। যশোর কোতোয়ালি থানার ইন্সপেক্টর শেখ তাসমীম আলম বিষয়টি স্বীকার করেছেন।  তিনি বলেন, শুক্রবার গভীর
রাতে পুলিশ কন্ট্রোল রুম ও জাতীয় জরুরি সেবার নম্বর থেকে আমরা জানতে পারি, শহরের শহীদ মসিয়ূর রহমান সড়কে একটি প্রাইভেটকার দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে। তথ্য পেয়েই পুলিশের রাত্রিকালীন দুটি টহল টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। ওই প্রাইভেটকারে তিনজন পুরুষ, তিনজন নারী ও একটি শিশু ছিল। ঘটনাস্থল শহীদ মসিয়ূর রহমান সড়কের প্রাক্তন কাস্টমস কমিশনার জিএম কামালের বাড়ির প্রাচীর ও বিদ্যুতের খুঁটিতে সজোরে আঘাত করে প্রাইভেটকারটি। বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোর কারণেই এই দুর্ঘটনাটি ঘটে বলে ধারণা করা হচ্ছে।’
মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালাচ্ছিলেন শফিকুল ইসলাম জ্যোতি। তিনি পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন বিষয়টি। রাতেই তাকে আটক করা হয়।  কাজেই পুলিশের ধারণা মদ্যপান করে বেপরোয়া গাড়ি চালানোয় এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। জ্যোতি সুস্থ আছেন এবং গাড়িটি পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শহরের শহীদ মসিয়ূর রহমান সড়কের পাশে আকিজ গলি একটি প্রাচীর ও বিদ্যুতের খাম্বার সঙ্গে প্রাইভেটকারটি ধাক্কা লেগে তিন নারী মারা যান। আহত হন চার জন।
নিহতরা হলেন যশোর শহরের ঢাকা রোড বিসিএমসি কলেজ এলাকার ইয়াসিন আলীর মেয়ে তানজিলা ইয়াসমিন (২৮), তনিমা ইয়াসমিন পিয়াসা (২৫) ও পিয়াসার খালাত ভাই আরএন রোড এলাকার মঞ্জুর হোসেনের স্ত্রী আফরোজা তাবাসসুম তিথী (২৬)। আহত হয়েছেন পিয়াসার স্বামী শফিকুল ইসলাম জ্যোতি (২৮), আফরোজা তাবাসসুম তিথীর মেয়ে মানিজুর (৩), শাহিন হোসেন (২৩) ও হৃদয় (২৮)। ইয়াসিন আলীর ভাই, নিহত দুইবোনের চাচা আব্দুল কাদের জানিয়েছেন, আগামী ২৩ জানুয়ারি তার ভাতিজি পিয়াসার বিবাহোত্তর সংবর্ধনার কথা ছিল।