সাতক্ষীরায় চেয়ারম্যান কর্তৃক ইউপি সদস্য মারপিট,থানায় অভিযোগ

89

বদরুজ্জামান খোকা জেলা প্রতিনিধি (সাতক্ষীরা)

বাঁশদহার ইউপি চেয়ারম্যান এসএম মোশারফ হোসেনের হাতে লাঞ্ছিত ও জখম হয়েছে ইউপি সদস্য সাবিনা ইয়াসমিন।  ১৪ ই জানুয়ারি রোজ মঙ্গলবার দুপুর দুইটার সময় সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বাঁশদহা ইউনিয়ন পরিষদের ঘটনা ঘটে। ঘটনার সূত্রে জানা যায় বাঁশদহা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন দুর্নীতি করতে থাকে। এক পর্যায়ে ইউপি সদস্য একত্রিত হয়ে বিভিন্ন দপ্তরে চেয়ারম্যানের নামে অভিযোগ করে। পরবর্তীতে সাতক্ষীরা সদর সংসদ সদস্য বীর মোস্তাক আহমেদ রবি এর সহযোগিতায় ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানের আপস-মীমাংসা করিয়া দেন। সে অনুযায়ী আজ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ইউনিয়ন পরিষদের সাধারণ সভার আয়োজন করে। উক্ত সভায় হাজির হয় চেয়ারম্যােনর নামে অভিযোগ কারি পুরুষ সদস্য ও একজন মহিলা সদস্যা। উপস্থিত সদস্যদের চেয়ারম্যান গালিগালাজ সহ বিভিন্ন প্রকারের অপমানজনক কথা বলতে থাকে। এমনকি ইউপি সদস্যদের কাছে থাকা মোবাইল চেয়ারম্যান ও তার সহযোগীরা নিয়ে নেয়। পরবর্তিতে ইউপি সদস্যরা নিজ নিজ বাড়ির পথে আসার সময় ৭,৮,৯ নম্বর মহিলা সদস্য সাবিনা ইয়াসমিনকে মিঠু নামের চেয়ারমেনের  বাহিনী ইট দিয়ে এলোপাতাড়ি আঘাত করে। মহিলা সদস্য সামিনা ইয়াসমিন অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে স্থানীয় পথচারীরা তাকে সাধারণ টিটমেন দিয়ে বাড়ির পথে পাঠিয়ে দেয়। পরবর্তীতে সাতজন ইউপি সদস্য সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমানের কাছে বিচারের জন্য গেলে তিনি সাতক্ষীরা সদর থানায় যাওয়ার জন্য বলেন। এসময় সাত জন সদস্য সাতক্ষীরা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমানের কাছে আসলে তিনি তাদেরকে বিচারের আশ্বাস দেন এবং একটি মামলা দায়ের করতে বলেন। এ বিষয়ে সাতক্ষীরা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন এবং তিনি বলেন আমার ফোর্সরা ইতিমধ্যে  মিঠুকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। এ বিষয়ে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কাছে জানতে চাইলে তিনি ঘটনা সত্যি নয় বলে জানিয়ে দেন।