বেড়েছে ঠাণ্ডার তীব্রতা,সূর্যের নেই দেখা, বিপদে খেটে খাওয়া মানুষ

129
মোঃ আল আমিন খান, খুলনা ব্যুরো 
শুক্রবার ভোর থেকে বৃষ্টি হওয়ায় সারাদেশের ন্যায় খুলনায় বেড়েছে ঠাণ্ডার তীব্রতা। বেলা বাড়লেও সূর্যের দেখা মিলছে না। থেমে থেমে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। শীতের বৃষ্টিতে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষ। কখনো থেমে থেমে মাঝারি আকারে আবার কখনো গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। শীতল হাওয়ার সঙ্গে শুরু হওয়া বৃষ্টির কারণে শীতের প্রকোপ আগের চেয়ে অনেকটা বেড়েছে। খানাখন্দে পানি জমে মহানগরের রাস্তাঘাট হয়েছে বিপদজনক।ছুটির দিন হওয়ায় প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে কেউ বের হচ্ছেন না মানুষ। এতে খুলনা মহানগরের রাস্তাঘাট অনেকটাই ফাঁকা রয়েছে। বৃষ্টি শুরু হওয়ার পর শহরের চেয়ে গ্রামাঞ্চলে শীতের তীব্রতা বেশি অনুভূত হচ্ছে।
যদিও জানুয়ারির শুরু থেকে বৃষ্টি হতে পারে, এমন পূর্বাভাস আগেই দিয়েছিল আবহাওয়া অধিদফতর। আবহাওয়া অফিস সূএে জানা যায়, নগরীতে শনিবার পর্যন্ত বৃষ্টির এই ধারা অব্যাহত থাকবে। তবে সারাদেশে রবিবার পর্যন্ত বৃষ্টিপাত হতে পারে। এছাড়া আগামী ১০ জানুয়ারির পরে মাঝারি শৈত্য প্রবাহের আশঙ্কার কথাও জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। খুলনা সোনাডাঙ্গা আবাসিক এলাকা ঘুরে দেখা মেলে একে তো তীব্র শীত, এর ওপর বৃষ্টি। এ দুই মিলে ভোর থেকে ভোগান্তি চরমে উঠেছে। রাতে আকাশ ভালো থাকলেও ভোর থেকে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি শুরু হয়। হাড় কাঁপুনি শীতে বৃষ্টি আগমন ঠাণ্ডার পরিমাণকে আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে।
খুলনা জেলা আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবহাওয়াবিদ আমিরুল আজাদ বলেন, ভোর সাড়ে ৫টা থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত ১০ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। আগামী রোববার পর্যন্ত থাকতে পারে বৃষ্টি। আগামী শনিবার থেকে তাপমাত্রা আরও কমে যাবে। বেড়ে যাবে শীতের তীব্রতা।