খুলনা জেলা ডিবির সাহসি পুলিশ কর্মকর্তা কনি মিয়ার নেতৃত্বে অস্ত্র উদ্ধার, আটক ২

182

।।আবুৃ হামজা বাঁধন, ডেক্স রিপোর্ট।।

অস্ত্র,  গোলাবারুদ ও মাদক উদ্ধারে খুলনা  জেলা ডিবি দীর্ঘ দিন ধরে সাহসিকতার সাথে অভিযান পরিচালনা করে আসছে। প্রতিটি সাড়াশি অভিযানের নেতৃত্বে রয়েছে খুলনা  জেলা ডিবির বর্তমান ভারপ্রাপ্ত অফিসার ইনচার্জ কনি মিয়া এবং এস আই মুক্ত রায়  চৌধুরী। যার ধারাবহিকতায় নিয়মিত অভিযানের মত গত ১২ নভেম্বর   এ্যাডঃ গোলাম নবীকে বোমা মেরে হত্যার প্রচেষ্টা সহ একাধিক মামলার পলাতক আসামি সন্ত্রাসী নান্নু মল্লিক ও আজাদ গাজী কে ০২ টি অস্ত্র, ০২ রাউন্ড কার্তুজ ও একটি মোটরসাইকেল সহ গ্রেফতার করা হয়।

তথ্যমতে,  গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভয়নগরের শীর্ষ সন্ত্রাসী, হত্যা, চাঁদাবাজি, অস্ত্র, বিষ্ফোরক সহ এ্যাডঃ গোলান নবী সাহেবকে বোমা মেরে হত্যার প্রচেষ্টা সহ বিভিন্ন মামলার পলাতক আসামি নান্নু মল্লিক (৩৪), পিতা- সোবাহান মল্লিক, মাতা-রহিমা বেগম, সাং-রানাগাতি, থানা-অভয়নগর, জেলা-যশোর ও তাঁর সহযোগী আসামি আজাদ গাজী (৩০), পিতা-মৃত আফজাল গাজী, মাতা- সুফিয়া বেগম, সাং-দামোদর মিস্ত্রী পাড়া, থানা-ফুলতলা, জেলা-খুলনাদের ১২/১১/২০১৯ খ্রিঃ তারিখ রাত্রে দিঘলিয়া থানাধীন বানিয়াঘাট বাজার (ফেরিঘাট বাজার) সংলগ্ন তিন রাস্তার মোড় থেকে ০২ টি অত্যাধুনিক পি-শাটারগান, ০২ রাউন্ড কার্তুজ ও ০১ টি মোটরসাইকেল সহ গ্রেফতার করেন।

জানাযায়, ধৃত নান্নু মল্লিক র্দীঘদিন যাবৎ আত্মগোপণে থেকে তার সন্ত্রাসী বাহিনী সহ হত্যা, চাঁদাবাজি, বোমা বিষ্ফোরণ ঘটিয়ে অপরাধ মূলক কর্মকান্ড সহ মাদক ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিল। তার বিরুদ্ধে খুলনা ও যশোর জেলার বিভিন্ন থানায় ০৮ টি মামলা রয়েছে। গত ২৫/১০/২০১৯ খ্রিঃ তারিখ তার সহযোগীদের সহ ফুলতলা থানাধীন যুগ্নিপাশা শেষ সীমানা এলাকায় অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য ক্রয় বিক্রয় কালে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এস আই (নিঃ) মুক্ত রায় চৌধুরী, পিপিএম নান্নু মল্লিকের সহযোগী ১। সৈয়দ জাহিদুল ইসলাম ওরফে রুবেল (২৮), পিতা- মোঃ তোফায়েল আহমেদ, মাতা-বিউটি বেগম, সাং-দামোদর উত্তরপাড়া, থানা-ফুলতলা, জেলা-খুলনা, ২। খন্দকার তারেকুজ্জামান ওরফে তারেক (৩৮), পিতা- মৃত খন্দকার আতিয়ার রহমান, মাতা-বেনিয়ারা বেগম, সাং- বাঐসোনা, থানা-নড়াগাতি, জেলা-নড়াইলদেরকে ০২ টি অত্যাধুনিক ওয়ান স্যুটারগান ও ০৩ রাউন্ড গুলি ও ৮০০ (আটশত) পিচ ইয়াবা সহ গ্রেফতার করলেও নান্নু মল্লিক ও তার এক সহযোগী মোটরসাইকেল যোগে পালিয়ে যায়।

এই ঘটনায় ফুলতলা থানায় অস্ত্র ও মাদক আইনে ০২ টি মামলা রুজু হয়। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ধারাবাহিক অভিযানের ফলে নান্নু মল্লিক ও তার সহযোগী আজাদ গাজী ১২/১১/২০১৯ খ্রিঃ তারিখ ০২ টি অস্ত্র ও ০২ রাউন্ড গুলি ও ০১ টি মোটরসাইকেল সহ দিঘলিয়া থানাধীন বানিয়াঘাট বাজার (ফেরিঘাট বাজার) সংলগ্ন তিন রাস্তার মোড় থেকে গ্রেফতার হয়।

তাদের বিরুদ্ধে জেলা গোয়েন্দা শাখা, খুলনার পুলিশ পরিদর্শক (নিঃ)/সেখ কনি মিয়া বাদী হয়ে অস্ত্র আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তকারী অফিসার জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই (নিঃ) মুক্ত রায় চৌধুরী, পিপিএম আসামিদের ০৫ (পাঁচ) দিনের রিমান্ডের আবেদন সহ আসামিদের বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করেছেন। ঘটনাস্থল থেকে পলাতক অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী সহ তাদের সহযোগীদের গ্রেফতারে খুলনা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে।