খুলনায় ঈদ উৎসব শান্তিপূর্ণ করতে মাঠে নেমেছে আইনশৃংখলা রক্ষাকারি বাহিনী

280
মোঃ আল আমিন খান, খুলনা ব্যুরো   
ঈদের ছুটিতে বাসা-বাড়ি, বিনোদন কেন্দ্র, সড়কপথের সার্বিক নিরাপত্তায় প্রস্তুত খুলনার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ঈদের ছুটিতে ফাঁকা থাকা বাসায় ‘গ্রিলকাটা পার্টির’ চুরি-ডাকাতির মতো ঘটনা যেন না ঘটে সে জন্য বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তাই জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঈদের ছুটি পায়নি পুলিশ, র‌্যাব, কোস্টগার্ড, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ানের সদস্যরা।খুলনা মেট্রোপলিটন ও জেলা পুলিশ সূত্রের তথ্যানুযায়ী, ঈদের ছুটিতে এখন অনেকটা ফাঁকা খুলনা। নেই চিরচেনা সেই কর্মব্যস্ত রূপ। আর এমন সময়ে অপরাধীচক্র যেন তৎপর হওয়ার সুযোগ না পায়, সে জন্য সমন্বিত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পুলিশ কর্তকর্তারা বলছেন, ঈদে নগরীতে উৎসবমুখর ও নিরাপদ পরিবেশ নিশ্চিত করতে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পরিপূর্ণ নিরাপত্তায় ঈদের সব কার্যক্রম সমাপ্ত করার জন্য সর্বোচ্চ ও সর্বাত্মক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার শেখ মনিরুজ্জামান মিঠু জানান, কেএমপি’র আটটি থানা এলাকায় ঈদগাহসহ গুরুপূর্ণ স্থানগুলো সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। ঈদকে কেন্দ্র করে ঈদের আগে ও পরে খুলনা মহানগরীতে চার স্তরের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। মহানগরীর মার্কেট, শপিং মল, বাস টার্মিনাল, লঞ্চঘাট ও রেলস্টেশনে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন এবং টহল বাড়ানো হয়েছে। থানা পুলিশ, সাদা পোশাকে পুলিশ, গোয়েন্দা পুলিশ ও মোবাইল টিম মাঠে রয়েছে। তিনি আরো জানান, নগরীর বিভিন্ন বিপণি বিতানে নগরবাসী যাতে গভীর রাত পর্যন্ত কেনাকাটা করে নির্বিঘ্নে বাসায় ফিরতে পারে সে জন্য নির্ধারিত পোশাক ও সাদা পোশাকে বিপুলসংখ্যক পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া অজ্ঞান পার্টি, চোর ও ছিনতাইকারী ধরতে গোয়েন্দা নজরদারিও করা হচ্ছে। রেল ও বাস স্টেশনে যাতে টিকিট কালোবাজারী না হয় তার গোয়েন্দা নজরদারি রাখা আছে। ঈদের জামাতে নিরাপত্তার স্বার্থে মুসল্লিদের ঈদগাহ ময়দানে জায়নামাজ ও টুপি ব্যতীত কোনো প্রকারের ব্যাগ বহন করতে নিষেধ রয়েছে। খুলনার অ্যাডিশনাল এসপি (বিশেষ শাখা) আনিচুর রহমান জানান, জেলার প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে নিয়মিত চেক পোস্ট বসানো হয়েছে। নয়টি থানা এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে সন্দেহভাজন ব্যক্তি ও যানবাহনে তল্লাশি করছে পুলিশ। এছাড়া জেলা এসপি এস এম শফিউল্লাহ’র নির্দেশনা অনুযায়ী গোয়েন্দা পুলিশ সাদা পোশাকে মাঠে কাজ করছে। পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে সব প্রকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে বলে জানা যায়।