হেলিকপ্টারে গিয়ে মনোনয়নপত্র জমা

486

মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন ছিল গতকাল বুধবার। এদিন দুপুরে যশোর-৫ (মণিরামপুর) আসনের বিএনপির মনোনয়ন পান অ্যাডভোকেট শহীদ ইকবাল।

তবে জমা দেয়ার নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ২৩৭ কিলোমিটার দূরের জেলা শহর যশোরে আসা একেবারেই অসম্ভব। আবার ওই সময়ে এই রুটে চলাচলকারী কোনও প্লেনের শিডিউলও নেই।

তাই বাধ্য হয়েই মনোনয়নপত্র পৌঁছাতে প্রায় দেড় লাখ টাকায় ভাড়া করা হয় একটি হেলিকপ্টার। আর এতে করে প্রার্থীর কাছের লোকজন উড়ে এসে নির্ধারিত সময়ের ঘণ্টাখানেক আগেই মনোনয়নপত্রটি জমা দেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে।

দলীয় সূত্র বলেছে, যশোর-৫ আসনটি ঐক্যফ্রন্টের শরিক জমিয়তে উলামা ইসলামের কেন্দ্রীয় মহাসচিব মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাসকে ছেড়ে দিয়েছে বিএনপি। কিন্তু তার বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে। এ কারণে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে শহীদ ইকবাল হোসেনকে বিএনপির মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মনোনয়নের চিঠি দেয়া হয়। জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ সময় ছিল বিকেল পাঁচটা। এ জন্য ১ লাখ ২৮ হাজার টাকায় হেলিকপ্টার ভাড়া করে মনোনয়নের চিঠি নেওয়া হয় যশোরে। শহীদ ইকবাল বলেন, ‘মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাসকে পুলিশ খুঁজছে। তার মনোনয়ন বাতিল হতে পারে। এজন্য আমাকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে অ্যাডভোকেট শহীদ ইকবাল আরটিভি অনলাইনকে বলেন, আমাকে মনোনয়নপত্র দেয়া হয়েছে এই বিষয়টি গতকাল বুধবার দুপুর একটার দিকে বিএনপির দলীয় কার্যালয় থেকে জানানো হয়। সময় সল্পতার কারণে আমার কর্মীরা হেলিকপ্টারে করে মনোনয়নপত্রটি আমার কাছে পৌঁছে দেয়। ঢাকা থেকে যশোরের দূরত্ব প্রায় ৩০০ কিলোমিটার। এই অল্প সময়ের মধ্যে যশোর পৌঁছা সম্ভব ছিলো না বলেই হেলিকপ্টারে মনোনয়নপত্রটি আনা হয়েছে। এটি কোনও শোডাউন ছিল না।