দেশের উন্নয়নে জাতীয় পার্টিকে সাথে চান প্রধানমন্ত্রী

সৌহার্দপূণভাবে জাপার সংলাপ শেষ

393

দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে অর্থবহ নির্বাচন চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার গণভবনে বিরোধী দল জাতীয় পার্টির (জাপা) সঙ্গে সংলাপে প্রধানমন্ত্রী তার এ অভিপ্রায়ের কথা জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, নির্বাচন সামনে রেখে সব দলের সঙ্গে মতবিনিময় করছি। আমরা চাই, একটি অর্থবহ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে। কারণ, বাংলাদেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ দেশকে স্বাধীন করে দিয়ে গেছেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ থেকে তিনি উন্নতির পথে নিয়ে স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে রেখে গেছেন। জাতির পিতা বাংলাদেশকে যে স্বল্পোন্নত দেশে রেখে গেছেন, সেখান থেকে আমরা দেশকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত করতে সক্ষম হয়েছি।

শেখ হাসিনা বলেন, নির্বাচন মানুষের ভোটের অধিকার, সে অধিকার তারা প্রয়োগ করবে। আমরা নির্বাচিত প্রতিনিধি যারা, আমাদের কাজ দেশের মানুষের সেবা করা এবং দেশকে উন্নত করা- আমরা সেভাবেই দেশকে উন্নত করছি। উন্নয়নের ধারা যেন অব্যাহত থাকে, সেটা আমাদের লক্ষ্য এবং এটা আমাদের রাখতেই হবে।

এ সময় সরকারকে গত পাঁচ বছর সহযোগিতা করায় বিরোধী দল জাপাকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আমাদের পথযাত্রায় জাতীয় পার্টি পাশে ছিল। আমাদের সঙ্গে ছিল। আমরা একসঙ্গে এ দেশকে এগিয়ে নিয়ে গেছি। যে সহযোগিতা পেয়েছি, সে জন্য আপনাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

আগামী নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ধারাবাহিক সংলাপ করছে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন ১৪ দলীয় জোট। বিএনপি, গণফোরাম, নাগরিক ঐক্য ও জেএসডির সমন্বয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে গত বৃহস্পতিবার সংলাপ শুরু হয়। এর ধারাবাহিকতায় সোমবার জাপার নেতৃত্বাধীন ৫৮ দলের জোট সম্মিলিত জাতীয় জোটের (ইউএনএ) সঙ্গে সংলাপে বসে ১৪ দল।

জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, বিরোধীদলীয় নেতা রওশনসহ ইউএনএর ৩৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল সন্ধ্যা ৭টায় গণভবনে প্রবেশ করে। সংলাপে আওয়ামী লীগের পক্ষে দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ ১৪ দলের জ্যেষ্ঠ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী এরশাদ ও রওশনকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। সংলাপ ও নৈশভোজে আমন্ত্রণ জানানোয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান তার বিশেষ দূত এরশাদ। জাপার জোটের প্রতিনিধিদের আপ্যায়ন করা হয় গণভবনে। সংলাপ শেষে বিরোধী দল জাপা নেতারা তাদের সন্তোষের কথা জানান। দলটির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন জানান, আন্তরিক পরিবেশে সংলাপ হয়েছে। তারা খুশি।

সংসদ ভেঙে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি, ভোটে বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে সেনা মোতায়েন, ইভিএম ব্যবহার না করাসহ সাত দফা দাবি সংলাপে নিয়ে গিয়েছিল ঐক্যফ্রন্ট। দাবি পূরণের আশ্বাস না পেয়ে অসন্তোষ জানান বিএনপি নেতারা।

তবে সংসদে প্রধান বিরোধী দলের আসনে বসা জাপার অবস্থান সম্পূর্ণ বিপরীত। সংলাপে তাদের জোরালো কোনো দাবি ছিল না। বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচনে আপত্তি নেই। কয়েক দিন আগেও ইভিএম ব্যবহারে আপত্তি জানিয়ে ছিলেন এরশাদ। তবে সংলাপে ইভিএমের পক্ষেই ছিল জাপা। গত শনিবার এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্টও সংলাপের ‘খুশির’ কথা জানিয়েছিল। সূত্র : সমকাল