অভয়নগরের রামসরা গ্রামের বিশ্বজিৎকে অপহরন ও গুম করার মিথ্যা অপবাদ দিয়ে মামলা করার অভিযোগ

976

স্টাফ রিপোর্টার :
অভয়নগরে সুন্দলী ইউনিয়নের রামসরা গ্রামের বিশ্বজিৎ মন্ডলকে অপহরনের পর গুমের মিথ্যা অভিযোগ এনে মামলা দিয়ার ঘটনা ঘঠেছে। রামসরা গ্রামের বিশ্বজিৎয়ের মা মাধুরী মন্ডল বাদী হয়ে যশোর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে এই মামলাটি করেছে বলে জানা গেছে। মামলার আসামীরা হলেন মনিরামপুর উপজেলার হরিদাস কাঠি ইউনিয়নের কুচলিয়া গ্রামের সচীণ মল্লিক ও তার ২ মেয়ে টুম্পা মল্লিক, ঝুম্পা মল্লিক এবং তার স্ত্রী পুর্নিমা মল্লিক। আসামী সচীন মল্লিক জানান, চলতি বছরের গত ২৬ জানুয়ারী আমার মেয়ে টুম্পা মল্লিককে পারিবারিক ভাবে দেখাশুনা করে সুন্দলী ইউনিয়নের রামসরা গ্রামের ভারত প্রবাসী বিশ্বজিৎ মন্ডলের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের কিছু দিনের মধ্যে আমার মেয়ে টম্পাকে নিয়ে ভারতে চলে যায়। সেখানে গিয়ে যৌতুকের দাবি করে আমার মেয়ের উপর অমানুষিক নির্যাতন চালাতে থাকে। গত জুলাই মাসের ভারতের উত্তর প্রদেশের এক বাড়িতে মেয়ে রেখে আমার জামাই নিরুদ্শে হয়ে যায় । সেখান থেকে আমার মেয়ে উক্ত ঘটনা জানালে আমি গ্রামের কয়েকজন গণ্যমান্য ব্যক্তিদয় নিয়ে রামসরা গ্রামের বিশ্বজিতের বাড়িতে গিয়ে উক্ত ঘটনা জানাই। তখন বিশ্বজিতের মা ও তার ভাইয়েরা মিলে আমাদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে বলে তোর মেয়েকে আর রাখবো না। বার বার বলেছি ৪ লাখ টাকা যৌতুক দিবি। তা এখনো দিসনি ্ তোর মেয়েকে রাখবো না। এমন অবস্থায় উপায়ন্ত ন্া পেয়ে আমি বাড়ি এসে উপজেলার হরিদাস কাঠি ইউনিয়ন পরিষদ বরাবর তাদের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ১০ অক্টোবর মাসে হাজির হাওয়ার দিন ধার্য থ্াকলে। তারা শুনানীর জন্য হাজির হয়। পরবর্তীতে ২৪ শে অক্টোবর বিশ্বজিৎকে হাজির করার কথা থাকলে তাকে হাজির না করে। তার মা ছেলেকে ভারতে পাঠিয়ে দিয়ে আমাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানীর চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছেন মাধুরী গংয়েরা। এ ব্যাপারে ৫নং হরিদাস কাঠি চেয়ারম্যান বিপদভঞ্জন পাড়ে বলেন, বিশ্বজিৎকে হাজির করার কথা থাকলে তারা হাজির করতে ব্যর্থ হওয়ার কারণে আমি বাদী সচীণ গংদের উচ্চ আদালতের ্স্বরনাপন্ন হওয়ার জন্য লিখিত দিয়ে দিয়েছি।