নরসিংদীর নিলুফা ভিলার দুই নারী ‘জঙ্গির’ আত্মসমর্পন

388

নরসিংদীর মাধবদীতে দুদিন ধরে ঘিরে রাখা নিলুফা ভিলায় অবস্থান নিয়ে থাকা সন্দেহভাজন দুই নারী জঙ্গি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন।

এর মধ্যে দিয়ে কোনো রক্তপাত ছাড়াই দীর্ঘ ৪১ ঘণ্টার স্নায়ুক্ষয়ী অপেক্ষার অবসান ঘটেছে বুধবার বিকালে।

আজ বুধবার বেলা পৌনে ৩টার দিকে কালো বোরখা পরা ওই দুই নারীকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঘেরাওয়ের মধ্যে পুলিশের একটি বিশেষায়িত অ্যাম্বুলেন্সে তোলা হয়। সে সময় তাদের মাথায় হেলমেট দেখা যায়।

পরে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) প্রধান মনিরুল ইসলাম অভিযানের সমাপ্তি ঘোষণা করে সাংবাদিকদের বলেন, নিলুফা ভিলার পঞ্চম তলার ওই ফ্ল্যাটে বেশ কিছু বিস্ফোরক পাওয়া গেছে। বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দলের সদস্যরা নিয়ন্ত্রিভাবে সেগুলোর বিস্ফোরণ ঘটিয়েছেন।

মনিরুল জানান, আত্মসমর্পণ করা দ্ইু নারীর নাম খাদিজা আক্তার মেঘনা এবং ইসরাত জাহান মৌ। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে ভগীরথপুরে আগের দিনের অভিযানে নিহত দুই ‘জঙ্গির’ পরিচয়ও পাওয়া গেছে।

“গতকাল নিহত জঙ্গিদের প্রাথমিক পরিচয় তাদের কাছে জানতে পেরেছি। তাদের নাম আকলিমা রহমান মনি এবং আবদুল্লাহ আল বাঙালি। তারা স্বামী-স্ত্রী। আবদুল্লাহ নব্য জেএমবির মিডিয়া শাখার প্রধান। ”

মনিরুল বলেন, মেঘনা, মৌ, মনি মানারাত বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন। তাদের তিনজনসহ আরেক নারীকে ২০১৬ সালে হলি আর্টিজান হামলার পর অগাস্টে গ্রেপ্তার করেছিল র‌্যাব। জামিনে ছাড়া পেয়ে তারা আবার জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়েন।

“জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে মিরপুর মডেল থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছিল। তারা সাত-আট মাস জেলে থেকে বের হয়ে যায়। বের হওয়ার পর তারা কেউ নিজেদের বাসায় ফিরে যায়নি। হিজরতে গিয়েই জঙ্গি কাজে জড়িয়ে পড়ে।”

ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল বলেন, “তারা নতুন ঘটনা ঘটানোর চেষ্টা করছিল। আজকে যে দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের একজনের স্বামী নব্য জেএমবির শীর্ষ পর্যায়ের নেতা বলে আমরা জানতে পেরেছি। আরেকজনের এখনো বিয়ে হয়নি। তবে বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল, এটুকু জানতে পেরেছি।”