খুলনার-খালিশপুর হত্যা মামলার আসামি গ্রেফতার ঃ অস্ত্র উদ্ধার

431

খুলনার খালিশপুর হত্যা মামলার দুই আসামিকে পুলিশ অস্ত্রসহ  গ্রেফতার করেছে। গতকাল সকাল ১১টায় নয়াবাটি হাজী বাড়ি থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। তারা হত্যা মামলার পলাতক আসামি বলে পুলিশ জানায়। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে ডিবি এএসআই শফিকুল ইসলাম নিশ্চিত করেছেন। গ্রেফতারকৃতরা হলো-নয়াবাটি মুন্সিবাড়ীর বাসিন্দা ইলিয়াস ফকিরের ছেলে শাকিল হোসেন ফকির (২০) ও নয়াবাটি রেললাইনের পূর্বপাশ এলাকার সোহরাব ব্যাপারীর ছেলে তপন ব্যাপারী (২৮)। শাকিলের গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জ জেলার কোটালিপাড়া থানার আড্ডাবাড়ী গ্রামে। শাকিলের কাছ থেকে একটি পাইপগান ও তপনের কাছ থেকে তিনটি সচল পাইপগান উদ্ধার করা হয়। তারা দীর্ঘদিন যাবৎ অস্ত্রের ব্যবসা করে আসছে বলে ডিবি অফিস থেকে প্রেরিত খবর বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর রাতে মুহসিন নামের এক যুবককে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা গোয়ালখালি কবরস্থানে লাশ ফেলে রেখে চলে যায়। এ ঘটনায় নিহতের বাবা মহারাজ বাদী হয়ে খালিশপুর থানায় মামলা দায়ের করলে ঘাতকচক্রের হুমকি ধামকিতে তারা এলাকা ছাড়তে বাধ্য হয়। তারা নয়াবাটি এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করতো। ওই মামলার আসামি গ্রেফতারকৃত শাকিল বলে পুলিশ জানায়।
মামলার বাদী এসআই শাহানুর ইসলাম বলেন, দুর্বৃত্তরা গোয়ালখালি কবরস্থানে এক যুবককে হত্যা করে। ওই মামলার আসামি হচ্ছে গ্রেফতারকৃত শাকিল। তিনি জানান, গ্রেফতারকৃত দু’জন বিক্রির করার জন্য অস্ত্রগুলো হেফাজতে রাখে। প্রথমে সাকিলকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার স্বীকারোক্তি মতে তপনকে গ্রেফতার করা হয়। চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে এ ব্যবসা করে আসছে বলে তিনি ধারণা করছেন। শাকিলের কাছ থেকে একটি এবং তপনের কাছ থেকে তিনটি পাইপগান উদ্ধার করা হয়। এগুলো বস্তার ভেতর লুকানো ছিল।
এলাকার একটি সূত্র জানায়, নয়াবাটি এলাকার প্রভাবশালী একটি পরিবারের সদস্যদের বিষয়টি ধামাচাপা দিতে দৌঁড়ঝাঁপ করতে দেখা যায়। ওই পরিবারের ছত্রছায়ায় থেকে চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে নানা ধরনের অপরাধ করে আসছিল।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির এসআই আবু জাফর জানান, আজ মঙ্গলবার আসামিদের চালান দেওয়া হবে। জিজ্ঞাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ড চাওয়া হবে।